সামাজিক ব্যাধিগুলোকে ভিলেনরূপে তুলে ধরতে চাই: লীনা সামাজিক ব্যাধিগুলোকে ভিলেনরূপে তুলে ধরতে চাই: লীনা – Narail news 24.com
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৯:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লোহাগড়ায় রেল প্রজেক্টের চোরাই মালসহ গ্রেফতার ১ কালিয়ায় ৬ ক্লিনিককে জরিমানা,অপারেশন থিয়েটার সিলগালা নড়াইলে ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তি মেলা শুরু ভবন নির্মাণে বিল্ডিং কোড অনুসরণ নিশ্চিত করতে ডিসি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান নড়াইলে জি আর প্রকল্পের হরিলুট ! নড়াইলে স্বাস্থ্য বিভাগের অভিযান: ল্যাবস্টার ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ ঘোষনা লোহাগড়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৩ নড়াগাতীতে ট্রলি থেকে ছিটকে পড়ে প্রাণ গেল হেলপারের নড়াইলে স্মরণসভা সভা অনুষ্ঠিত যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সশস্ত্র বাহিনীকে সক্ষম করে তোলা হচ্ছে – প্রধানমন্ত্রী

সামাজিক ব্যাধিগুলোকে ভিলেনরূপে তুলে ধরতে চাই: লীনা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩১ মে, ২০২১
ছবি সংগৃহীত

পেশায় প্রশাসনিক কর্মকর্তা হলেও আফরীন জামান লীনা গল্প লিখতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। এবার ঈদে প্রচার হয়েছে তার তিনটি নাটক ‘রক্ত’, ‘ফিজিক্স ক্যামিস্ট্রি ম্যাথ’ ও ‘এই মন তোমারই’। নাটকগুলো থেকে বেশ ভালো সাড়া পেয়েছেন তিনি। তবে সবচেয়ে বেশি প্রশংসা পেয়েছেন ‘রক্ত’ নাটকটির জন্য। দর্শকদের এমন সাড়া ও ভালোবাসায় উচ্ছ্বসিত তিনি। সম্প্রতি এক আলাপচারিতায় নানা বিষয়ে কথা বলেন তিনি। সেই আলাপচারিতার চুম্বকাংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

ঈদের কাজগুলো প্রসঙ্গে…

এবার ঈদে যে কাজগুলো প্রচার হয়েছে তার মধ্যে সবগুলো থেকেই ভালো সাড়া পাচ্ছি। দর্শকরা বেশ পছন্দ করছেন। তবে বিশেষ করে আমি বলবো ‘রক্ত’ নাটকটির কথা। এটা শুধুই একটা কাজ নয়, এটা একটা ভালোবাসা। একটা সামাজিক ব্যাধিকে আমি আমার গল্পে তুলে আনতে পেরেছি। একটা মেসেজ দিতে চেয়েছি দর্শকদের। কাজটি করতে গিয়ে আমার বন্ধু জিয়াউল ফারুক অপূর্ব, সাবিলা নূর, রাকেশ বসু সবার অনেক বেশি সাপোর্ট পেয়েছি আমি। সবাই এত সুন্দর পারফর্ম করেছেন, যা সত্যি মুগ্ধ করার মতো। দর্শক সাড়াও এতো বেশি পেয়েছি যা ভাষায় প্রকাশ করার মত না। দেশ ও দেশের বাইরে অনেক জায়গা থেকে কাজটির জন্য প্রশংসা পেয়েছি আমি। এরজন্য সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ।

লেখার শুরুটা…

লেখালেখির অভ্যাসটা অনেক আগে থেকেই। আমি লিখতে ভীষণ ভালোবাসি। আমি যা লিখি তার বেশিরভাগই আমার বাস্তব জীবনে দেখা কিংবা আমার জীবনের কিছু অংশ। চেষ্টা করি প্রতিটা গল্পেই ভিন্নতা রাখতে। ২০১৮ সালে প্রথম লিখালিখি শুরু। সেসময় ‘স্বপ্নযোদ্ধা’ নামে একটি নাটকের গল্প লিখি আমি। সেটার কাজ শেষ হয়ে যায় কিন্তু কোনো এক কারণে সেটি এখনো প্রচারে আসেনি। এরপর বিভিন্ন সময়েই মাথায় বিভিন্ন ধরণের গল্প আসে, চেষ্টা করি সেগুলো লিখার। এরপর বেশ কিছু গল্প লিখা হয় আমার। এখন পর্যন্ত মোট নাটকের গল্পের কাজ হয়েছে আমার। ‘স্বপ্নযোদ্ধা’র পর লিখি ‘চিলেকোঠার ভালোবাসা’; এখানে সাফা কবিরের সঙ্গে জুটি বেঁধে কাজ করেন কলকাতার ঋষি কৌশিক। তাকে আমি প্রথমবার বাংলাদেশে নিয়ে আসি। এরপর এবার ঈদের দুটো কাজ করে সে ‘ফিজিক্স ক্যামিস্ট্রি ম্যাথ’ ও ‘এই মন তোমারই’।

লেখিকা হিসেবে অভিজ্ঞতা…

একজন নতুন লেখিকা হিসেবে অভিজ্ঞতা যে খুব বেশি, তা বলবো না। ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে আমার ধারণাটা খুবই স্বচ্ছ। আমি যাদের সঙ্গে কাজ করেছি, যেই সার্কেলটা পেয়েছি; তাদের ওপর ভিত্তি করেই তো ইন্ডাস্ট্রিটা দেখবো। সেদিক থেকে আমি খুবই স্মুথলি ইন্ডাস্ট্রিতে প্রবেশ করেছি। প্রতিদ্বন্দ্বীতা বা কোন ঝামেলা ফেইস করতে হয়নি। এখানে কাজ করতে গিয়ে কোনো কষ্টও করতে হয়নি, বেগও পেতে হয়নি। যেমন আমি শুরুটাই করেছি অভিনেতা অপূর্বকে দিয়ে, যে কিনা আমার খুবই ভালো বন্ধু। টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির একজন প্রভাবশালী অভিনেতা সে। সে কাজের ব্যাপারে আমাকে সবসময় অনেক উৎসাহিত করতো, হেল্প করতো। সবকিছু মিলিয়ে আমি বলবো অভিজ্ঞতা আসলেই চমৎকার।

গল্পে ভিন্নতা ও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ…

আমি এখন পর্যন্ত যেসব গল্পে কাজ করেছি তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য পেয়েছি ‘রক্ত’ কাজটি করে। লেখা কিংবা দেখার ক্ষেত্রে মনের যে খোঁড়াক থাকে সেটা নিবারণ করেছে এই কাজটি। আমি তৃপ্তি পেয়েছি। শুরুতেই এমন একটা কাজের এত এত দর্শক সাড়া আমাকে অনেক বেশি আপ্লুত করেছে। দর্শকরা একটু রোমান্টিক, একটু কমেডি কিংবা ট্র্যাজেডিমূলক কাজ দেখতে পছন্দ করে যার কারণে ‘রক্ত’ এর মত কাজ খুব কম হচ্ছে ইন্ডাস্ট্রিতে। সেদিক থেকে ভালো কাজগুলো অনেকদূর পর্যন্ত যেতে পারছে না। দর্শকরা যখন বাস্তববাদী গল্পে আগ্রহ বেশি দেখাবে তখন সেসব কাজ কিন্তু বেশি হবে। ভালো কাজগুলোর তখন ভিউও বেশি হবে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা…

আমি যেসব গল্প লিখছি বা আগামীতেও যেসব লিখবো সবসময় এটা মাথায় থাকে যে, সেখানে যেন ভিন্নতা থাকে। অনেকের কাছে চেনা গল্প মনে হলেও শেষ গিয়ে দেখবে টুইস্ট। চিরচেনা গল্পটা যেন নতুন কিছু পায়, এটাই আমার প্ল্যান। এবারের কাজগুলোতে যা ছিলো আর কি। সামনে যে গল্পগুলো আসবে সেগুলোতেও নতুন কিছু থাকবে। সামাজিক যে ব্যাধিগুলো রয়েছে সেগুলোকে ভিলেনরূপে তুলে ধরতে চাই আমি। যেমন- আমার রক্ত নাটকের ভিলেন ছিল কিন্তু মাদক। এরকম যে ব্যাধিগুলো আছে সেগুলোকে নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করবো। সেইসাথে রোমান্টিক কিংবা কমেডি; চেষ্টা থাকবে সব ধরণের গল্প নিয়েই কাজ করার।

নারীপ্রধান গল্প…

নারীপ্রধান গল্প নিয়ে কাজ করবো। এরকম একটা গল্প লিখা শেষ করেছি আমি। আমার ব্যক্তি, বাস্তবজীবনে দেখা কিংবা সম্মুখীন হওয়া অনেক ঘটনার কিছু কিছু অংশ নিয়েই আমি গল্প লিখেছি। জীবনে চলতে গিয়ে অনেক বাস্তবতার সম্মুখীন হয়েছি, সেরকম কিছু অংশ নিয়েই গল্প প্রস্তুত করা আছে আমার। যদি নিয়মিত কাজ করে যেতে পারি তাহলে আগামী নারী দিবসে সেই গল্পটি নিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা আছে।

এখানে একটা কথা বলতে চাই, গতানুগতিক নারীবাদীরা যেভাবে নিজেকে সামনে আনার চেষ্টা করে আমি তার পক্ষপাতী নই। আমি নারীবাদী নই। আমি একদিকে কনজারভেটিভ আবার স্বাধীনও। আমি অবশ্যই স্বাধীন, তবে আমার স্বাধীনতার গণ্ডিটা আমি নিজে তৈরি করে নিয়েছি। আমি স্বাধীনতায় বিশ্বাসী, উচ্ছৃঙ্খলতায় নয়। নিজেকে নারী নই, মানুষ হিসেবে প্রমাণ করতে চাই। নারীবাদীরা নারী হিসেবে অধিকার চায়, মানুষ হিসেবে নয়। সেসবের পক্ষপাতী আমি নই। মানুষ হিসেবে একজন নারীর পাশে আমাকে যেমন থাকতে হবে, তেমনি একজন পুরুষের পাশেও থাকতে হবে।

© এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ফেসবুকে শেয়ার করুন

More News Of This Category
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin
x