সরকারি অফিসে লাল ফিতার দৌরাত্ম্য শেষ – পলক সরকারি অফিসে লাল ফিতার দৌরাত্ম্য শেষ – পলক – Narail news 24.com
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
একুশ মাথা নত না করতে শেখায় – প্রধানমন্ত্রী স্পেনের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের আহ্বান রাষ্ট্রপতির নড়াইল ও লোহাগড়ায় সেনাপ্রধান জেনারেল শফিউদ্দিন আহমেদ এর ব্যস্ত সময় পার শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দেবে না সরকার – ওবায়দুল কাদের সয়াবিন তেলের দাম লিটারে কমলো ১০ টাকা নড়াইলে মাদকাসক্তি প্রতিরোধ ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে সভা অনুষ্ঠিত লোহাগড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ’র ডান হাত ও ডান পা বিচ্ছিন্ন, ঢাকায় প্রেরণ মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে নিমন্ত্রণ বাংলাদেশের গুরুত্বকেই তুলে ধরে – কাদের রেজিস্ট্রেশনযোগ্য জিআই পণ্যের তালিকা দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট

সরকারি অফিসে লাল ফিতার দৌরাত্ম্য শেষ – পলক

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩০ মে, ২০২১

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, সরকারি অফিসে একটি ফাইল এক টেবিল থেকে আরেকটি টেবিলে যেতে অনেক সময় লাগতো। অথচ গত ৬ বছরে ১ কোটি ৮১ লক্ষ ফাইল অনলাইনে নিষ্পন্ন হয়েছে। শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশে সরকারি অফিসগুলো লাল ফিতার দৌরাত্ম্য শেষ হয়েছে। এখন ই-ফাইল ম্যানেজমেন্ট এর মাধ্যমে সরকারি অফিসগুলো পরিচালিত হয়।

রোববার বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) অডিটরিয়ামে আইসিটি বিভাগ ও বাংলাদেশ ব্লকচেইন অলিম্পিয়াডের উদ্যোগে ‘ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ- ২০২১’ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কারের অর্থ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এসব ফাইল সুরক্ষায় নির্ভরযোগ্য প্রযুক্তি ‘ব্লকচেইন’। এ প্রযুক্তি গ্রহণ না করলে আমরা পিছিয়ে পড়ব। ফ্রন্টিয়ার প্রযুক্তি ব্যবহারে আমরা পিছিয়ে থাকতে চাই না। কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি ব্যবহার করে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে হবে। মজার বিষয় হচ্ছে দেশে এখন যে প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে তা দেশেরই তৈরি। আমরা চাই আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশ গড়ে তুলবে ব্লকচেইন প্রযুক্তি।

আইটি খাত থেকে আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে রপ্তানি আয় ৫ বিলিয়ন ডলার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে আমরা কাজ করছি জানিয়ে পলক বলেন, দেশে বর্তমানে সাড়ে ৬ লাখ আইটি ফ্রিলান্সার রয়েছে। তারা প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি আয় করছে। হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার সবমিলিয়ে দক্ষ জনশক্তির মাধ্যমে ১ বিলিয়ন ডলার আয় হচ্ছে।

দ্রুত পরিবর্তনশীল পৃথিবীতে শিক্ষার কোন শেষ নেই উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবিলায় ডিজরাপটিভ টেকনোলজি বিষয়ে হাতে কলমে শিক্ষা দিতে দেশে ৩০০টি স্কুল অব ফিউচার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশে সেরা প্রযুক্তিবিদ তৈরি করতে শেখ হাসিনা ইন্সটিটিউট অব ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। তরুণদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স, বিগডাটা, রোবটিকস্, ব্লকচেইন, অগমেন্টেড রিয়েলিটি ও মাইক্রোপ্রসেসর ডিজাইন প্রযুক্তিতে দক্ষ করে তুলতে ৬৪টি জেলায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। সারাদেশে ৮ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

© এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ফেসবুকে শেয়ার করুন

More News Of This Category
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin
x