সংবিধান ও আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করব – সার্চ কমিটির প্রধান সংবিধান ও আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করব – সার্চ কমিটির প্রধান – Narail news 24.com
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সবার সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় মসৃণভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন – মার্কিন থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক জন্মটাই যাদের অগণতান্ত্রিক, সেই বিএনপিই গণতন্ত্রের কথা বলে মন্তব্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নড়াইলে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল বাসচলকের, আহত ১৯ লোহাগড়ায় মোটরসাইকেলের জন্য আত্মহত্যা ! কিশোর অপরাধীদের মোকাবেলায় বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী – মাহবুব হোসেন ব্রাজিল বাংলাদেশ থেকে সরাসরি তৈরি পোশাক আমদানি করতে পারে – প্রধানমন্ত্রী সৌদিতে চাঁদ দেখা যায়নি , বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর লোহাগড়ায় নদীতে পড়ে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মেলেনি নড়াইলে নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে ইফতার বিতরণ 

সংবিধান ও আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করব – সার্চ কমিটির প্রধান

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
সার্চ কমিটির সভাপতি বিচারপতি ওবায়দুল হাসান

নড়াইল নিউজ ২৪.কম ডেস্ক:

নির্বাচন কমিশন গঠনে করা সার্চ কমিটির সভাপতি বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেছেন, সংবিধান ও আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করব। রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ শনিবার সার্চ কমিটি গঠনের পর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি এ কথা বলেন।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারক বিচারপতি ওবায়দুল বলেন, ‘কমিটির সম্মানিত সহকর্মীদের সঙ্গে পরামর্শ করে বাংলাদেশের সংবিধান ও আইন অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করব।’
এ দায়িত্ব দেয়ার জন্য রাষ্ট্রপতিকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমি ও আমার সহকর্মীদের ওপর এই মর্যাদাপূর্ণ দায়িত্ব অর্পণ করায় মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই। আমাদের প্রথম বৈঠক করতে মুখিয়ে আছি।’

নামগুলো কীভাবে দিতে পারবেন এমন প্রশ্নে সার্চ কমিটির সভাপতি বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, ‘গত সার্চ কমিটিতে আমি সদস্য ছিলাম। সাবেক প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন সেই কমিটির কনভেনর ছিলেন।

‘তখন যেভাবে নাম প্রস্তাব করেছিলাম, আশা করি এবারও সেই রকমভাবে করব। তখন বিভিন্ন রাজনৈতিক দল নাম পাঠিয়েছিলেন। সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব কীভাবে করা যায় এবার।’

‘রাষ্ট্রপতি আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন। আমরা সেই আস্থার মর্যাদা রাখার চেষ্টা করব। নিরপেক্ষভাবে আমরা নিরপেক্ষ ব্যক্তিদের নাম প্রস্তাব করব। আমরা তো ১০ জনের নাম প্রস্তাব করব। সেখান থেকে রাষ্ট্রপতি পাঁচটা নাম চূড়ান্ত করবেন। আলটিমেট দায়িত্ব তো মহামান্য রাষ্ট্রপতির। আমরা আশা করি সবকিছু ভালই হবে,’ যোগ করেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।
সার্চ কমিটির সভাপতি আরও বলেন, ‘আশা করছি আগামীকালের মধ্যে সার্চ কমিটির সদস্য ও আমার সহকর্মীদের সঙ্গে কথা বলব। তাদের সঙ্গে আলোচনা করেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

১৫ কার্যদিবসের মধ্যে ইসি গঠনে নাম প্রস্তাব করার বিষয়ে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান আরও বলেন, ‘সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা না করে এই বিষয়ে এখন কিছু জানাতে পারব না।’

বিএনপি বরাবরের মতো সার্চ কমিটি ও ইসি পুনর্গঠনে বিরোধিতা করে আসছে। তাদেরকে কীভাবে এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে একত্রিত করা যেতে পারে এমন প্রশ্নে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, ‘এই বিষয়েও আমি একই জবাব দিব। সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে, সবার সম্মিলিত মতামত ও প্রস্তাবের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

রাষ্ট্রপতির পক্ষে শনিবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সই করা প্রজ্ঞাপনে সার্চ কমিটি গঠনের কথা বলা হয়। প্রজ্ঞাপনটি গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়েছে।

এ কমিটি ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন, ২০২২’-এর ধারা অনুযায়ী সিইসি ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগে আইনে বর্ণিত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের নাম সুপারিশ করবে।

সার্চ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান, মহাহিসাব নিরীক্ষক, সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান, সাবেক নির্বাচন কমিশনার ছহুল হোসাইন ও কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক।

এর আগে, নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসানকে প্রধান করে ৬ সদস্যের সার্চ কমিটি গঠন করা হয়। শনিবার সকালে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ প্রজ্ঞাপন জারি করেছেন। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান, বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী, সরকারি কর্ম কমিশন চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসাইন, সাবেক নির্বাচন কমিশনার ছহুল হোসাইন এবং কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক আনোয়ারা সৈয়দ হক।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, এই অনুসন্ধান কমিটি ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন, ২০২২’ মোতাবেক দায়িত্ব ও কার্যাবলী সম্পন্ন করবে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ অনুসন্ধান কমিটির কার্য সম্পাদনে প্রয়োজনীয় সাচিবিক সহায়তা প্রদান করবে।

গত ২৭ জানুয়ারি একাদশ জাতীয় সংসদের ষোড়শ অধিবেশনে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২’ পাসের প্রস্তাব করেন। এরপর তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। ২৯ জানুয়ারি বিলে সই করেন রাষ্ট্রপতি। এরপর ৩০ জানুয়ারি তা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়।

কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন বর্তমান ইসির মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি। নিয়ম অনুযায়ী তার আগেই নতুন কমিশন গঠন করতে হবে রাষ্ট্রপতিকে। সেই কমিশনের অধীনেই হবে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।

সংসদে উত্থাপিত হওয়ার পর বিলটি অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। কমিটি দুটি সংশোধনী এনে পাসের সুপারিশ করলে ধারা দুটি সংশোধন করে বিলটি পাস হয়।

প্রথমে বিলটির নাম ছিল ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল’। সংসদে সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণের মাধ্যমে নাম হয় ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল’। রাষ্ট্রপতি সই করার পর নাম হয় ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন, ২০২২’।

এর আগে নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করেন রাষ্ট্রপতি। সংলাপে অংশ নিয়ে দলগুলো তাদের মতামত ও প্রস্তাব উপস্থাপন করে। তবে বিএনপি সংলাপে অংশ নেয়নি।

© এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ফেসবুকে শেয়ার করুন

More News Of This Category
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin
x