মা মাছ হালদায় ডিম ছেড়েছে কম, সংগ্রহ ৬৫০০ কেজি মা মাছ হালদায় ডিম ছেড়েছে কম, সংগ্রহ ৬৫০০ কেজি – Narail news 24.com
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৩:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভবন নির্মাণে বিল্ডিং কোড অনুসরণ নিশ্চিত করতে ডিসি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান নড়াইলে জি আর প্রকল্পের হরিলুট ! নড়াইলে স্বাস্থ্য বিভাগের অভিযান: ল্যাবস্টার ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ ঘোষনা লোহাগড়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৩ নড়াগাতীতে ট্রলি থেকে ছিটকে পড়ে প্রাণ গেল হেলপারের নড়াইলে স্মরণসভা সভা অনুষ্ঠিত যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সশস্ত্র বাহিনীকে সক্ষম করে তোলা হচ্ছে – প্রধানমন্ত্রী অবৈধ বা যন্ত্রপাতিহীন হাসপাতাল বন্ধে অভিযান চলবে – স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেশে মোট ভোটার ১২ কোটি সাড়ে ১৮ লাখ – সিইসি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় মাদরাসার ছাত্র খুন, আহত-২

মা মাছ হালদায় ডিম ছেড়েছে কম, সংগ্রহ ৬৫০০ কেজি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১

 নড়াইল নিউজ ২৪.কম ডেস্ক:

দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে ডিম ছেড়েছে মা মাছ। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে হালদায় অতিরিক্ত লবণাক্ত পানির প্রবেশ ও বেশি পরিমাণে বজ্রসহ বৃষ্টি না হওয়ায় মা মাছ ডিম ছেড়েছে কম। 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরি কর্তৃপক্ষ তাদের জরিপের ভিত্তিতে জানিয়েছে, এ বছর ৬ হাজার ৫০০ কেজি ডিম সংগ্রহ হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে অন্তত চারগুণ কম। তবে কি পরিমাণ ডিম সংগ্রহ হয়েছে তা সরকারীভাবে ঘোষণা করা হয়নি। 

চট্টগ্রাম জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, এ বছর অনেক কম ডিম ছেড়েছে মা মাছ। আবহাওয়া অনুকূলে ছিল না। বিশেষ করে বৃষ্টি নেই, ঢল নেই। তারপর ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে হালদার নদীতে লবণাক্ত পানি প্রবেশ করেছে। এটা নদীর জন্য ক্ষতিকর। তবে আমরা আশাবাদী বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢল নেমে আসলে আবারও এ বছর হালদায় ডিম ছাড়বে মা মাছ।

মঙ্গলবার (২৫ মে) রাত ১২টার পর নমুনা ডিম ছাড়ে কিছু মাছ। আর বুধবার (২৬ মে) রাত ১টার পরে কার্প জাতীয় মা মাছ হালদায় ডিম ছাড়া শুরু করে। ওই সময় থেকে নদীর হাটহাজারী ও রাউজান অংশে প্রায় ৩৫০টি নৌকা নিয়ে সংগ্রহকারীরা হালদায় মাছের ডিম সংগ্রহ শুরু করেন। ডিম সংগ্রহ শেষে এখন চলছে ডিম থেকে রেণু করার প্রক্রিয়া।

সংশ্লিষ্ট  সূত্রে জানা গেছে, ২০২০ সালে হালদা নদীতে রেকর্ড পরিমাণ ২৫ হাজার ৫৩৬ কেজি ডিম পাওয়া গিয়েছিল। আর ২০১৯ সালে প্রায় ১০ হাজার কেজি ডিম সংগ্রহ করা হয়েছিল। ২০১৮ সালে স্থানীয়রা ডিম সংগ্রহ করেছিলেন ২২ হাজার ৬৮০ কেজি। এর আগে ২০১৭ সালে মাত্র ১ হাজার ৬৮০ কেজি, ২০১৬ সালে ৭৩৫ (নমুনা ডিম) কেজি, ২০১৫ সালে ২ হাজার ৮০০ কেজি ও ২০১৪ সালে ১৬ হাজার ৫০০ কেজি ডিম সংগ্রহ করা হয়।

হালদা গবেষক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরি কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক মো. মনজুরুল কিবরিয়া বলেন,  বিগত ২১ বছরের মধ্যে হালদার পরিবেশ, প্রতিবেশ ও মা মাছ রক্ষায় সর্বোচ্চ চেষ্টা চালানো হয়েছে। এত সফলতা সত্ত্বেও পরিবেশগত দুটো প্যারামিটার সব হিসাব-নিকাশ উলটপালট করে দেয়। হালদায় রুই জাতীয় মাছের ডিমের প্রত্যাশিত ফলাফল আসেনি।

তিনি বলেন, এর অন্যতম কারণ দুটির প্রথমটি হলো- এপ্রিল থেকে জুন মাস হালদার রুই জাতীয় মাছের প্রজনন সময়। এই তিন মাসের মধ্যে প্রতি মাসের আমাবস্যা অথবা পূর্ণিমা তিথিতে ভারী বৃষ্টিপাত হলে মাছ নদীতে ডিম ছাড়ে। কিন্তু এবার এপ্রিল-মে দুই মাস অতিবাহিত হলেও হালদার নদীর উজান অঞ্চলে প্রত্যাশিত বৃষ্টি হয়নি। ফলে পাহাড়ি ঢল না আসায় নদীতে মাছের ডিম ছাড়ার অনুকূল পরিবেশ তৈরি হয়নি।

দ্বিতীয়টি হলো- মে মাসের চতুর্থ জো অর্থাৎ পূর্ণিমা তিথি ছিল ২৩ থেকে ২৯ তারিখ। এ সময় অল্প পরিমাণ বৃষ্টি হলে মাছের গোনাড পরিপক্বতার কারণে মাছ ডিম ছাড়ার জন্য তৈরি হয়। কিন্তু ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে সাগর উত্তাল হয়ে ওঠে। পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। একই সঙ্গে হালদা নদীর জোয়ার-ভাটার নদী হওয়ায় জোয়ারের সময় পানির উচ্চতা অনেক বৃদ্ধি পায়। জোয়ারের পানির সঙ্গে সমুদ্রের লবণাক্ত পানির অনুপ্রবেশ ঘটে। যা স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে অনেক গুণ বেশি ছিল।

তিনি আরও বলেন,পরিবেশগত এই দুটো বাধার কারণে হালদা নদীতে মাছের প্রজননের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি ব্যাহত হয়। কিন্তু মাছের গোনাডের পরিপক্বতার কারণে সামান্য অনুকূল পরিবেশ ডিম ছাড়তে বাধ্য হয়। ফলে হালদা নদীতে প্রচুর মাছের অবস্থান এবং দূষণ মুক্ত থাকা সত্ত্বেও রুই জাতীয় মাছ স্বতঃস্ফূর্তভাবে প্রত্যাশিত ডিম ছাড়েনি।

তিনি আরও বলেন,  আমরা আশা করছি হালদার লবণাক্ত পানির দূরীকরণের মাধ্যমে ও উজানে প্রত্যাশিত বৃষ্টি হলে হালদা নদীতে দ্বিতীয়বারের মতো ডিম ছাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, প্রতিকূল পরিবেশ স্বত্বেও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরির তথ্য অনুযায়ী এবারের সংগৃহীত ডিমের মোট পরিমাণ প্রায় ৬ হাজার ৫০০ কেজি।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরির গবেষক টিম হালদা নদীতে মাছের প্রজনন সংক্রান্ত নিম্নোক্ত প্রাথমিক তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করে। তাদের তথ্য মতে, এ বছর ডিম ধরার নৌকার সংখ্যা গত বছরের তুলনায় অনেক বেশি ছিল। যার সংখ্যা প্রায় ৩৫০টির মতো। এ বছর প্রায় ৮০০ ডিম সংগ্রহকারী নদী থেকে সরাসরি ডিম সংগ্রহে অংশ নেয়।

হালদা বিশেষজ্ঞরা বলেন, প্রতি বছর চৈত্র থেকে আষাঢ় মাসের মধ্যে আমাবস্যা ও পূর্ণিমা তিথিতে ব্রজসহ বৃষ্টি হলে পাহাড়ি ঢল নামে হালদা নদীতে। তখনই পরিবেশ অনুকূলে পেলে নদীতে ডিম ছাড়ে মা মাছ।

© এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ফেসবুকে শেয়ার করুন

More News Of This Category
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin
x