বরখাস্তকৃত ডিআইজি মিজানের ৩ বছর, বাছিরের ৮ বছরের কারাদণ্ড বরখাস্তকৃত ডিআইজি মিজানের ৩ বছর, বাছিরের ৮ বছরের কারাদণ্ড – Narail news 24.com
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সবার সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় মসৃণভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন – মার্কিন থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক জন্মটাই যাদের অগণতান্ত্রিক, সেই বিএনপিই গণতন্ত্রের কথা বলে মন্তব্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নড়াইলে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল বাসচলকের, আহত ১৯ লোহাগড়ায় মোটরসাইকেলের জন্য আত্মহত্যা ! কিশোর অপরাধীদের মোকাবেলায় বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী – মাহবুব হোসেন ব্রাজিল বাংলাদেশ থেকে সরাসরি তৈরি পোশাক আমদানি করতে পারে – প্রধানমন্ত্রী সৌদিতে চাঁদ দেখা যায়নি , বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর লোহাগড়ায় নদীতে পড়ে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান মেলেনি নড়াইলে নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে ইফতার বিতরণ 

বরখাস্তকৃত ডিআইজি মিজানের ৩ বছর, বাছিরের ৮ বছরের কারাদণ্ড

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

নড়াইল নিউজ ২৪.কম ডেস্ক:

ঘুষ নেয়ার মামলায় পুলিশের বরখাস্ত হওয়া উপমহাপুলিশ পরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানকে ৩ বছর এবং দুদকের বরখাস্ত পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকে ৮ বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম আলোচিত মামলাটির রায় দেন।

রায়ে বাছিরকে একটি ধারায় তিন বছর, আরেক ধারায় পাঁচ বছর সাজা দেয়া হয়েছে। সঙ্গে ৮০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অন্যদিকে মিজানকে শুধু ৩ বছরের বিনাশ্রম সাজা দিয়েছে আদালত।

রায় ঘোষণার পর মিজান ও বাছিরের ডিভিশন চেয়ে তাদের আইনজীবীরা আবেদন করেন। সেটিও শুনানি হয়। তবে বিচারক এখনও আদেশ দেননি। পরে আদেশ দেবেন বলে জানান।

আসামি পক্ষে শুনানি করেন এহসানুল হক সমাজী ও আবুল হাসেম ভূঁইয়া, তাদের ডিভিশন বাতিল চেয়ে শুনানি করেন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

১০ ফেব্রুয়ারি আসামি ও দুদকের আইনজীবীরা যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। পরে আদালত আজ বুধবার রায়ের জন্য তারিখ দেয়।

গত ৩ জানুয়ারী আত্মপক্ষ শুনানিতে নিজেদের নির্দোষ দাবি করেন মিজানুর রহমান এবং এনামুল বাছির। পরে ১২ জানুয়ারি আসামিরা তাদের লিখিত বক্তব্য জমা দেন।
গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর মামলাটিতে সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।

মামলার অভিযোগভুক্ত ১৭ সাক্ষীর মধ্যে ১২ জনের সাক্ষ্য নেয় আদালত।

৪০ লাখ টাকার ঘুষ কেলেঙ্কারির অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্লাহ বাদী হয়ে মামলা করেছিলেন। ২০২০ সালের ১৯ জানুয়ারি তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন শেখ মো. ফানাফিল্লাহ।

ওই বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র নেন ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ। এরপর আদালত চার্জ গঠনের তারিখ দিয়ে মামলা ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বদলির আদেশ দেন।

২০২০ সালের ১৮ মার্চ আসামিদের অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেয় আদালত।

© এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ফেসবুকে শেয়ার করুন

More News Of This Category
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin
x