করোনায় আক্রান্ত শ্বশুরকে পিঠে করে হাসপাতালে নিলেন পুত্রবধূ করোনায় আক্রান্ত শ্বশুরকে পিঠে করে হাসপাতালে নিলেন পুত্রবধূ – Narail news 24.com
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সবুজ বাংলাদেশ গড়তে সারাদেশে সাধ্যমতো গাছ লাগাতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান সেন্টমার্টিনে মিয়ানমারের গোলাগুলি, প্রয়োজনে জবাব দেয়া হবে – ওবায়দুল কাদের ঈদের ছুটিতে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে অধিদপ্তরের যে নির্দেশনা মানতে হবে অবসরকালীন সময়ে জন্মভূমি মধুমতী পাড়ে আসব – সেনা প্রধান জেনারেল শফিউদ্দিন আহমেদ কালিয়ায় গুলিতে আহত-২, বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাটের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিনিয়োগ প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর একটি আইএমইআই নম্বরে দেড় লাখ মোবাইল ফোন ! নড়াইলে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে একজনকে হত্যার অভিযোগ নড়াইলে সেমিনার অনুষ্ঠিত নড়াইলে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যনদের দায়িত্ব গ্রহন

করোনায় আক্রান্ত শ্বশুরকে পিঠে করে হাসপাতালে নিলেন পুত্রবধূ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৬ জুন, ২০২১
ছবি সংগৃহীত

নড়াইল নিউজ ২৪.কম আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

করোনাভাইরাস মহামারিতে বিপর্যস্ত ভারত। বিপর্যস্ত দেশটির চিকিৎসা ব্যবস্থাও। এপ্রিল ও মে মাসের তুলনায় দেশটিতে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা কমে এলেও চারদিকে হাহাকারের ছবি যেন স্পষ্ট। তবে এর মধ্যেও যেন মন ভালো করে দেওয়ার মতো দৃশ্যে কিছুটা হলেও লাঘব হয় হাহাকারের যন্ত্রণা। তেমনই এক ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এক বৃদ্ধ। কাজের সূত্রে ছেলে বাড়ির বাইরে থাকায় তার দেখাশোনার দায়িত্ব ছিল ছিল পুত্রবধূর কাঁধেই। শ্বশুর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বেশ কয়েকবার চেয়েও সাহায্য পাননি কারও। ফলে বাধ্য হয়ে শ্বশুরকে কাঁধে চাপিয়ে তিনি রওয়ানা হন হাসপাতালের দিকে।

আলোচিত ওই পুত্রবধূর নাম নীহারিকা দাস। তার বাড়ি আসামের নগাঁও জেলায়। শ্বশুরকে কাঁধে করে নিয়ে হাসপাতালে ছুটে যাওয়ার এই দৃশ্য ভাইরাল হয়েছে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায়, গোলাপি রঙের পোশাক পরিহিত নীহারিকা দাস অবলীলায় এক জনকে কাঁধে চাপিয়ে হেঁটে চলেছেন। পিঠ আঁকড়ে ঝুলে থাকায় বৃদ্ধ ব্যক্তিই তার শ্বশুর। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় ৭৫ বছর বয়সী শ্বশুরকে পিঠে চাপিয়ে ওইভাবেই তিনি হাসপাতালে নেন তাকে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, কর্মসূত্রে আসামের বাইরে থাকেন নীহারিকার স্বামী সুরজ। আর তাই রাজ্যের নগাঁও জেলার ভাটিগাঁওয়ের বাড়িতে ৭৫ বছর বয়সী শ্বশুর থুলেশ্বরের দেখাশোনার পাশাপাশি সংসার সামলানোর কাজ, সব একাই করেন নীহারিকা।

শ্বশুরের জ্বর ও কোভিডের উপসর্গ দেখা দেওয়ায় নীহারিকা তাকে পরীক্ষা করাতে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনেকের সাহায্য চেয়েও পাননি। তাই বাধ্য হয়ে শ্বশুরকে পিঠে নিয়েই তিনি রওনা হন স্থানীয় একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের উদ্দেশে। সেখানে নমুনা পরীক্ষার পর থুলেশ্বরের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। করোনা শনাক্ত হয় পুত্রবধূ নীহারিকারও।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে বৃদ্ধ থুলেশ্বরকে হাসপাতাল ও নীহারিকাকে হোম আইসোলেশনে পাঠানো হয়। কিন্তু অসহায় শ্বশুরকে একা ছাড়তে রাজি হননি নীহারিকা। বসে থাকেন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। শেষ পর্যন্ত সেখানকার চিকিৎসক দু’জনকেই অ্যাম্বুল্যান্সে করে ভোগেশ্বর ফুকনানি হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

হাসপাতালে জেনারেল ওয়ার্ড থেকে নিয়ম করে এসে আইসিইউতে ভর্তি শ্বশুরের সেবা করছিলেন নীহারিকা। সেই ভিডিও অবশ্য ভাইরাল হয়েছে। কখনও শ্বশুরকে সাহস দেন। কখনও মজা করেন। কখনও বলেন, ‘এটা আইসিইউ দেউতা (বাবা), ভয় পাবেন না। বুড়ো হয়ে ঢুকেছেন, ডেকা (যুবক) হয়ে বেরোবেন।’

কখনও তাকে বলতে শোনা যায়, ‘দেউতা আপনার কোনো চিন্তা নেই। কাঁদবেন না একদম। আমি তো আছি আপনার ভরসা।’

কিন্তু বৃদ্ধ থুলেশ্বরের অবস্থা আরও খারাপ হওয়ায় শনিবার তাকে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে। সঙ্গে যেতে পারেননি নীহারিকা। তিনি ভিডিও বার্তায় হাতজোড় করে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, ‘শ্বশুরের রক্ত লাগবে শুনছি। তার পাশে কেউ নেই। আমার নিজের শরীর ক্রমশ খারাপ হচ্ছে। শক্তি শেষ হয়ে আসছে। দয়া করে আমায় গুয়াহাটির একই হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। না হলে তাকে (শ্বশুর) সাহায্যের কেউ থাকবে না।’

© এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ফেসবুকে শেয়ার করুন

More News Of This Category
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin
x